সোমবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৯:৪৭ পূর্বাহ্ন

বাগেরহাটে শাশুড়ির পরকিয়া ফাস করায় অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে মারধরের ঘটনায় মামলা

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৯৯৫ বার পঠিত
বাগেরহাটে শাশুড়ির পরকিয়া ফাস করায় অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে মারধরের ঘটনায় মামলা
ফটো সংগৃহীত

বাগেরহাট সংবাদদাতা : বাগেরহাটের রামপালে শাশুড়ির পরকিয়া ফাস করায় অন্ত:সত্ত্বা গৃহবধুকে মারধরের ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। নির্যাতিতা গৃহবধু সাদিয়া আক্তার মান্নি বাদী হয়ে স্বামী শেখ আশিকুর রহমান সোহানসহ ৬ জনকে আসামী করে সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) দুপুরে রামপাল থানায় এই মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামীদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

সাদিয়া আক্তার মিন্নি মামলায় উল্লেখ করেন, চলতি বছরের ৬ জানুয়ারী বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার রনসেন গ্রামের আশিকুর রহমান সোহানের সাথে তার বিয়ে হয়। বিয়ের ৩ মাস পর মান্নি জানতে পারে তার শাশুড়ি পরকিয়ায় আসক্ত।

এঘটনাটি স্বামীকে জানালে শুরু নানা অত্যাচার নির্যাতন। এক পর্যায় মান্নি আট মাসের অন্ত:সত্ত্বা হয়ে পড়লে তার উপর বেড়ে যায় নির্যাতন। এঘটনায় মান্নির পরিবার বাগেরহাট লিগ্যাল এইডে বিচার চেয়ে আবেদন করে।

সেখানে তার স্বামী আশিকুর রহমান সোহান স্ত্রীকে মেনে নিবে না বলে চলে যায়। পরের দিন ৯ ডিসেম্বর সন্ধায় মান্নির বাড়িতে আসে আশিকুর রহমান সোহানসহ আরও কয়েকজন।

এসময় মান্নির মা অতিথি আপ্যায়নে ব্যস্ত থাকেন। এরইমধ্যে ঘরের বারান্দায় বসে অন্ত:সত্ত্বা মান্নিকে মেরে ও মাথায় কুপিয়ে আহত করে পালিয়ে যায় তারা। এরপর মান্নিরে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পঙ্কজ চন্দ্র রায় বলেন, রামপালে স্বামীর নির্যাতনের শিকার সাদিয়া আক্তার মান্নি বাদি হয়ে রামপাল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর আসামীদের গ্রেপ্তারের জন্য থানা পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আমরা বিষয়টি খুব গুরুত্বের সাথে দেখছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2009-2022 bddhaka.com  # গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রনালয়ের বিধি মোতাবেক নিবন্ধনের জন্য আবেদিত # এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Theme Developed BY ThemesBazar.Com