1. bddhaka2009bd@gmail.com : FARUQUE HOSSAIN : FARUQUE HOSSAIN
  2. bddhakanews24.com@gmail.com : admi2017 :
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৩:৫৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
বিজিবি কর্তৃক চৌকা সীমান্তে ফেন্সিডিল আটক প্রসংগে। চাঁপাইনবাবগঞ্জে ডাকাতের কবলে পড়ে প্রাণ গেল যুবকের গোমস্তাপুরে এক রাতে ২ সড়কে ৩ ডাকাতি।। ডাকাতের হামলায় নিহত -১ নাচোলে শারদীয় দূর্গোৎসব প্রতিমা বির্সজন সম্পন্ন চাঁপাইনবাবগঞ্জ র‌্যাব-৫ কর্তৃক ০২ কেজি গাঁজা সহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী আটক। বিশেষ প্রেস বিজ্ঞপ্তি সিপিসি-১ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ), র্যাব-৫ রাজশাহী কর্তৃক ০৩ বছরের সাজাপ্রাপ্ত দীর্ঘদিনের পলাতক আসামীকে গ্রেফতার রহনপুর- গোমস্তাপুর সড়কে ৮ ঘন্টা পর স্বাভাবিক হলো যান চলাচল শিবগঞ্জ উপজেলার প্রতিটি মন্দির কে আধুনিক করা হবে —- উপজেলা চেয়ারম্যান নাচোলে দুঃস্থ অসহায়দের মাঝে ছাগল বিতরণ গোমস্তাপুরে জাতীয় কন্যাশিশু দিবস উদযাপন

রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে একজনের মৃত্যু

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৫ মে, ২০২১
  • ৯০ বার পঠিত

নিজস্ব সংবাদদাতা : রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে তিন দিন মারা যান এক রোগী। মঙ্গলবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পরীক্ষা-নিরীক্ষায় দেখা গেছে, ওই রোগী অন্যান্য রোগের পাশাপাশি মিউকরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত ছিলেন।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে সংক্রমিত একজন রোগী এখনো বারডেম হাসপাতালে ভর্তি আছেন। শনাক্ত হওয়া আরেকজন রোগী অন্য হাসপাতালে চলে গেছেন।

মঙ্গলবার (২৫ মে) সকালে বারডেম হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ভর্তি থাকা রোগীর পরিস্থিতি উদ্বেগজনক নয়। তাকে ওষুধ দেওয়া হচ্ছে।

রাজধানীর বারডেম জেনারেল হাসপাতালে চলতি মাসে দুজনের শরীরে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস শনাক্ত করা হয়। সম্প্রতি ভারতে রোগটি ছড়িয়ে পড়ার পর দেশজুড়ে সতর্ক বার্তা জারি করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এমন উদ্বেগের মধ্যে রোগটি দেশে শনাক্ত হয়েছে।

বারডেম হাসপাতালের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. লাভলি বাড়ৈ গণমাধ্যমকে বলেন, আমাদের ল্যাবে দুজনের শরীরে মিউকরমাইকোসিস শনাক্ত হয়েছে। আমরা তাদের চিকিৎসা দিচ্ছি এবং ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করছি। বারডেমের ল্যাবরেটরিতে করোনা রোগীর শরীরে এবারই প্রথম রোগটি শনাক্ত হয়।

ডা. লাভলি বাড়ৈ জানান, ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত রোগীর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকলে অবস্থা গুরুতর হতে পারে। তাই, তাদের সতর্কভাবে চিকিৎসা দিতে হয়।

জানা গেছে, গত ৮ মে ৪৫ বছর বয়সী এক রোগীর শরীরে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়। পরে গত ২৩ মে ৬০ বছর বয়সী আরেকজনের দেহে রোগটি শনাক্ত হয়।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ছত্রাক–জাতীয় এক রোগ, যা প্রধানত কভিড রোগীদের মধ্যে ছড়াচ্ছে। মাত্রা ছাড়া স্টেরয়েড নিলে, বেশি দিন হাসপাতালে নিবিড় পর্যবেক্ষণে থাকলে অথবা উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের এই ছত্রাকের শিকার হওয়ার আশঙ্কা বেশি। শাকসবজি, মাটি, ফল, একই মাস্ক প্রতিদিন পরা থেকে এই রোগ ছড়ায় বলে সতর্ক করা হয়েছে।

উপসর্গ হলো জ্বর, মাথাব্যথা, নাক ও চোখ লাল হয়ে যাওয়া, দৃষ্টি কমে যাওয়া, শ্বাসকষ্ট, বুকে ব্যথা, রক্তবমি ইত্যাদি।

ভারতে এখন পর্যন্ত ৮ হাজার ৮০০ জনের দেহে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা কালো ছত্রাক পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে ২১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। ভারতের তামিলনাড়ু, গুজরাট, উড়িষ্যা, রাজস্থান ও তেলেঙ্গানা—এই পাঁচ রাজ্যে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসকে মহামারি হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

ভারতে ছড়িয়ে পড়া ব্ল্যাক ফাঙ্গাস যাতে বাংলাদেশে না ছড়াতে পারে সেজন্য সতর্কতা জারি করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। একই সঙ্গে একটি গাইডলাইনও তৈরি করা হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা আতঙ্ক না ছড়িয়ে সতর্ক হতে বলেছেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র ডা. নাজমুল ইসলাম জানিয়েছেন, ভারতের ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বাংলাদেশের জন্য নতুন চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই জাতীয় টেকনিক্যাল কমিটিকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে যে এই ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হলে করণীয় কী হবে, চিকিৎসা ব্যবস্থা কী হবে তার বিস্তারিত গাইডলাইন তৈরিতে। আর সারাদেশে সতর্কতাও জারি করা হয়েছে। সিভিল সার্জন ও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে।

জাতীয় টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান ডা. মো. শহিদুল্লাহ বলেন, ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের উৎপত্তিস্থল নিয়ে নানা কথা আছে। তবে এটা এখন প্রায় নিশ্চিত যে মাটি এবং গাছপালা থেকে ছাড়ায়। তবে কেউ কেউ বলছেন করোনা চিকিৎসায় যে স্টেরয়েড ব্যবহার করা হয় সেখান থেকে ছাড়ায়। তাহলে ভারতে কীভাবে এলো? সংকটের কারণে ভারতে যে ইন্ড্রাষ্ট্রিয়াল অক্সিজেন ব্যবহার করা হয়েছে সেখান থেকে এটা ছাড়াতে পারে।

তার মতে, ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সুস্থ সবল মানুষের ক্ষতি করতে পারে না। যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম তাদের ক্ষতি করে। ডা. শহিদুল্লাহ বলেন, গাইড লাইন তৈরির জন্য স্বাস্থ্য অধিপ্তরের একটি কমিটি আছে। করোনা শুরুর পর থেকে তারা এ পর্যন্ত আটটি বিভিন্ন ধরনের গাইড লাইন তৈরি করেছেন। টেকনিক্যাল কমিটি তাদের কাজের তদারকি করে। আমরা তাদের সঙ্গে এ নিয়ে বসব।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সংক্রামক রোগ বিভাগের চিকিৎসক ডা. ফরহাদ হোসেন বলেন, করোনা চিকিৎসায় স্টেরয়েড ব্যাপকভাবে ব্যবহার হচ্ছে ভারতে। আমাদের এখানেও হচ্ছে। স্টেরয়েড রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। ফলে রোগী ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সনাক্ত করার ব্যবস্থা আছে। আর কিছু উপসর্গ দেখেও এটা চিহ্নিত করা যায়। করোনা রোগির নাক দিয়ে যদি রক্ত পড়ে, নাকে ঘা হয়ে যায়, চোখে অস্পষ্ট দেখে, ফুসফুসে একবার ইনফেকশন হয়ে কমে যাওয়ার পর যদি আবার বাড়ে তাহলে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সন্দেহ করা যায়। আমরা চিকিৎসকেরা এখন এদিকে খেয়াল রাখছি।

তার মতে, এটা নিয়ে আতঙ্ক ছাড়নোর কোনো কারণ নাই। এখনো ক্লিনিক্যালি বাংলাদেশে কোনো রোগীর শরীরে এই ছত্রাক পাওয়া যায়নি। তবে সতর্কতা জরুরি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2009-2022 bddhaka.com  # গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রনালয়ের বিধি মোতাবেক নিবন্ধনের জন্য আবেদিত # এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Theme Developed BY RushdaSoft